September 26, 2018
  • ইসিকে গণসংহতি আন্দোলনের আইনি নোটিশ
  • লিটন-সাকিবের বিদায়ে চাপে বাংলাদেশ
  • বাংলাদেশে ঢোকার অপেক্ষায় আরও ৫ লাখ রোহিঙ্গা
  • মা হলেন অভিনেত্রী শায়লা সাবি
  • ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি
  • আইসিসি নিজেই মিয়ানমারের বিচারে সক্ষম: জাতিসংঘ মহাসচিব
  • প্রধান বিচারপতিকে বিতাড়িত করে শেখ হাসিনা বিশ্ব দরবারে কলঙ্কিত: রিজভী আহমেদ
  • মংলা-বুড়িমারী বন্দরে শতভাগ দুর্নীতি: টিআইবি
  • বাংলাদেশ থেকে অস্কারে যাচ্ছে ‘ডুব’
  • গল্প শুনবেন নুসরাত ফারিয়া

জনতা ব্যাংকে চেয়ারম্যান নিয়োগে নাটকীয়তা


বার্তা৭১ ডটকমঃ একক ঋণের বৃহৎ কেলেঙ্কারি নিয়ে আলোচনায় থাকা রাষ্ট্রমালিকানাধীন জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিয়োগ নিয়ে শেষ পর্যন্ত নাটকই করল সরকার। তিন দিনের মধ্যে পাল্টে ফেলল সিদ্ধান্ত। কয়েক ঘণ্টার নোটিশে দায়িত্ব নিলেন নতুন চেয়ারম্যান। গতকাল বুধবার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেন ব্যাংকটির পরিচালক লুনা শামসুদ্দোহা।

এর আগে সাবেক অর্থসচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুনকে চেয়ারম্যান করতে ব্যাংকটির পর্ষদকে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি চিঠি দিয়েছিল অর্থ মন্ত্রণালয়। চিঠিতে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো আপত্তি না থাকলে পর্ষদ হেদায়েতুল্লাহ আল মামুনকে চেয়ারম্যান নিয়োগ দিতে পারে।

তবে জনতা ব্যাংক ওই চিঠি আমলে নেয়নি। তাকে চেয়ারম্যান করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে কোনো আবেদনও করেনি।

ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের সূত্রগুলো জানায়, হেদায়েতুল্লাহ আল মামুনকে চেয়ারম্যান করার উদ্যোগের কারণে ব্যাংকটির শীর্ষ ব্যবসায়ী গ্রাহকদের কয়েকজন ও শীর্ষ পর্যায়ের কয়েকজন কর্মকর্তা বেশ অস্বস্তিতে পড়েন। তাঁর নিয়োগ বাতিল করতে সরকারের উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগ করেন কেউ কেউ। এরপরই তাঁর নিয়োগ বাতিল হয়।

জানতে চাইলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. ইউনুসুর রহমান গত রাতে বলেন, ‘ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিয়োগের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হতেই পারে। এর আগেও হয়েছে।’ এর বেশি কিছু তিনি বলতে চাননি।

নতুন চেয়ারম্যান লুনা শামসুদ্দোহা বলেন, তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন। আগের নিয়োগের বিষয়ে কিছু জানেন না।

জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসেবে গত তিন বছর দায়িত্বে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য সচিব শেখ মো. ওয়াহিদ-উজ-জামান। গত ৭ ডিসেম্বর তার চেয়ারম্যানের মেয়াদ শেষ হয়। এরপর নতুন কাউকে চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়নি সরকার।

ব্যাংক জানায়, চিঠির পর ব্যাংকের কয়েকজন কর্মকর্তা শীর্ষ ব্যবসায়ী গ্রাহকদের নিয়ে দফায় দফায় আলোচনা করে অন্য কাউকে চেয়ারম্যান করতে তদবির শুরু করেন। নিজেদের সুবিধার জন্য তাঁরা এমন কাউকে চেয়ারম্যান করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন, যাতে সুবিধা নিতে কোনো সমস্যা না হয়। এ জন্যই তাঁরা বেছে নিতে চান নতুন কাউকে। ব্যাংকটির শীর্ষ গ্রাহকের মধ্যে রয়েছে এস আলম গ্রুপ, বেক্সিমকো গ্রুপ, এননটেক্স গ্রুপ, থার্মেক্স গ্রুপ ও যমুনা গ্রুপ।

আর এই পর্যায়েই গতকাল দুপুরে নিয়োগ পান ব্যাংকটির পরিচালক লুনা শামসুদ্দোহা, যিনি দোহাটেক নিউ মিডিয়া নামের একটি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান। তিনি ২০১৬ সালের ৬ জুন থেকে জনতা ব্যাংকের পরিচালক। নিজের ব্যবসায়ে বেশি মনোযোগী থাকায় ব্যাংকের পরিচালক হিসেবে তিনি বেশি সময় দিতে পারছিলেন না বলে অভিযোগ রয়েছে।

ব্যবসায়ী গ্রাহক ও ব্যাংকারদের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল তাকেই চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেয় সরকার। বর্তমান পরিচালক থাকায় তাকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনাপত্তিপত্র নিতে হয়নি বলে জানা গেছে। গতকালের পূর্বনির্ধারিত পরিচালনা পর্ষদের সভায় তিনি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেন।

ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুছ ছালাম আজাদ বলেন, নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগে গতকাল চিঠি আসে এবং গতকালই দায়িত্ব নেন তিনি। এ জন্য আগের চিঠি অকার্যকর হয়ে যায়। সূত্র : প্রথম আলো

বিভাগ - : অর্থ ও বাণিজ্য

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন